online income in bangladesh,freelancing in bangladesh

আপওয়ার্কে সফল হবার কিছু কথা

লিখছেনঃ  সংগ্রহঃটেকটিউন্স                                                      অনেক  দিন পর টিউন করতে হাজির হয়ে গেলাম। কাজের ব্যস্ততার জন্য লেখালিখি করা হয়ে উঠেনি। আজকে আমি আপনাদের জন্য, বিশেষ করে যারা নতুন ফ্রিল্যান্সার, যারা আপওয়ার্কের মত জায়গায় একাউন্ট ওপেন করে সফলতা অর্জন করতে চান তাদের জন্য এই লেখা।

আশা করছি সবার অনেক উপকারে আসবে।

প্রতিটি সেকশন খুব মনোযোগ দিয়ে পড়ুনঃupwork photo in একটি গুরত্বপূর্ন বিষয়ঃসুনাম                                                                           জগতে, এবং আপওয়ার্কে, আপনার অতীত কাজের অভিজ্ঞতা ভবিষ্যত গ্রাহকদের জন্য খ্যাতির কারণ। কাজের সাফল্য স্কোর আপওয়ার্কে আপানার খ্যাতির পরিমাপক। ফ্রিল্যান্সারদের সাফল্যের ইতিহাস মার্কেটপ্ল্যাসের সার্চে রেজাল্ট, র‌্যাংকিং এবং ক্লায়েন্ট যারা তাদের কাজে নিয়োগ করবে তাদের নির্বাচিত করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাপারে এক সূদুর প্রসারী প্রভাব বিস্তার করে

কাজ সম্পর্কে আশা এবং উদ্দীপনা থাকা অত্যন্ত মহৎ একটি ব্যাপার। তবে তার মানে এই নয় যে আপনার বিড করা প্রত্যেকটি প্রযেক্‌ট এর জন্যই আপনাকে হায়ার করা হবে। সেই প্রযেক্টগুলোই শুধু মাত্র নির্বাচন করুন যেগুলো খুব ভাল ভাবে এবং সময়মত সম্পন্ন করতে আপনি সক্ষম। এখানে আরো পাঁচটি টিপস সংযোজন করা হল কিভাবে নতুন কোন প্রযেক্ট সফলতার সাথে সম্পন্ন করবেন।

১.কাজ বুঝতে হবে ভালো ভাবে

নিশ্চিত করুন প্রযেক্ট সম্পন্ন করতে যে সকল যোগ্যতা/দক্ষতা প্রয়োজন তা আপনার আছে। ক্লায়েন্ট যে রকম দক্ষতা চাচ্ছেন, তা পাচ্ছেন তো? নিশ্চিত করুন।

২.কাজ শেষ করুন নির্দিষ্ট সময়ের মাঝেই

ডেডলাইন বুঝুন এবং নিশ্চিত হোন যে প্রযেক্ট সফলভাবে সম্পন্ন করার জন্য আপনার সময় আছে। আপনার অন্যান্য অঙ্গীকার এবং সময়সীমা বিবেচনা করুন,পরিকল্পনা অনুযায়ী।

৩.আপনি কাজটি পারবেন কিনা আগে সেটি নিশ্চিত করুন

এটা জানা যথেষ্ট নয় যে আপনি কাজ করতে পারেন। আপনাকে অবশ্যেই এটা প্রমাণ করতে হবে যে আপনি কাজের জন্য যথাযথ উপযুক্ত।আপনার অভিজ্ঞতা দেখাতে প্রোফাইল, কভার লেটার এবং দক্ষতা ব্যবহার করুন এবং ক্লায়েন্টকে যতটা সম্ভব সহযোগিতা করুন আপনাকে নির্বাচন করার জন্য করার জন্য।

৪. কথা বলুন পরিষ্কার ভাবে

ইন্টারভিউতে অংশগ্রহণ করুন, যখন ক্লায়েন্ট আপনাকে ইন্টারভিউর জন্য আমন্ত্রণ জানায়। নিশ্চিত করুন যে আপনি বুঝতে পারছেন ক্লায়েন্ট যা খুজছেন। আপনি হয়ত বুঝতে পারলেন যে, কোন একটি বিষয় আপনার ধারণার সাথে হুবুহু মিলছে না। তাই প্রযেক্ট গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকুন।

৫.সময়কে পরিকল্পনা অনুযায়ী সাজিয়ে নিন

একদিনে অনেক ঘন্টা সময় পাবেন কাজ করার। এটা নিশ্চিত করুন যে একটি কাজের জন্য কতক্ষণ সময় ব্যয় করতে আপনি সক্ষম, কারন দিনের সবটুকু সময় একটি কাজের জন্য ব্যয় করা সম্ভব নাও হতে পারে। সেই প্রযেক্টগুলোই গ্রহন করুন যেগুলো অত্যন্ত সফলতার সাথে এবং সময়মত সম্পন্ন করা সম্ভব হবে।

কাজ শুরু করবার আগের টিপসঃ

কাজ শুরু করার পূর্বে, এটা নিশ্চিত করা অত্যন্ত কঠিন যে আপনার প্রযেক্ট টি অত্যন্ত সফলতার সাথে সম্পন্ন হবে, এ ক্ষেত্রে যোগাযোগ একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কয়েকটি ভাল পদ্ধতির একটি হচ্ছে যে অন্য ফ্রিল্যান্সারদের জন্য কাজ করা।

১.প্রযেক্ট নিয়ে কথা বলুন বিস্তারিত

যখনি আপনি স্কাইপি, ফোন, বা গুগল হ্যাঙ্গআউট এর মাধ্যমে ক্লায়েন্ট এর সাথে আলোচনা করবেন, তখন নিশ্চিত হোন যে ক্লায়েন্ট যে সময়ের মধ্যে কাজটি চাচ্ছেন তা আপনি দিতে পারবেন।

২.এক সাথে কাজের ক্ষেত্রে কথা বলে সব ঠিক করে নিন

মিটিং চলাকালে, ক্লায়েন্ট কে এ ব্যাপারে নিশ্চিত করুন, কাজের অগ্রগতির জন্য কিভাবে আপনি যোগাযোগ রক্ষা করবেন। এছাড়াও আপনি কখন যোগাযোগ করতে চান এবং কোন বিষয়ে আলোচনা করতে চান, ক্লায়েন্ট কে প্রযেক্ট চলা কালীন এসব বিষয়ে আপডেট দিতে থাকুন।

৩.সময়সীমাঃ গুরুত্বপুর্ণ একটি বিষয়

আপনার ক্লায়েন্ট এর সঙ্গে কথা বলার কিছু সময়ের মধ্যেই ডেডলাইন নিশ্চিত করুন। ডেডলাইন সম্পর্কিত কোন কিছুই যদি কনমফার্ম হয়ে না থাকে তাহলে আপওয়ার্ক ম্যাসেজ অপশন ব্যবহার করে এ বিষয়ে ক্লায়েন্টকে অবহিত করতে পারেন। এ ক্ষেত্রে পরবর্তীতে কোন সমস্যা হলে এই ম্যাসেজ রেফারেন্স হিসেবে কাজ করবে।

৪. প্রজেক্ট এর জন্য যা যা লাগবে সব ঠিক ভাবে বুঝে নিতে হবে

আপনার সবগুলো প্রশ্ন একসঙ্গে একটি তালিকা করে রাখুন। আপনার প্রথম মিটিং এ এই তালিকা নিয়ে প্রথমে আলোচনা করা যেতে পারে। প্রশ্ন ছাড়াও, সেখানে কোনো পাসওয়ার্ড, কন্টাক ইনফর্মেশন  আপনার প্রয়োজন কিনা তাও জেনে নিন। শুরু করতে প্রয়োজনীয় সবকিছু একত্রিত করুন, এবং এসব ব্যাপারে ক্লায়েন্ট কে এক বার জিজ্ঞাসা করে নিন।

৫. ক্লায়েন্টের সাথে পরিকল্পনার শেয়ারঃ

আপনি যখনি উপলব্ধি করবেন যে আপনি হয়ত প্রযেক্টটি সম্পন্ন করতে পারবেন না, তাহলে সরাসরি আপনার ক্লায়েন্ট অবহিত করুন, যেন তিনি সে অনুযায়ী পরিকল্পনা করতে পারেন।

প্রযেক্ট চলাকালীন সময়ে যা করতে হবেঃ

যোগাযোগ, সম্মান, এবং সংবেদনশীলতা অত্যন্ত গুরুত্বপূরর্ণ, একটি পেশাদার সম্পর্ক স্থাপনের জন্য।

১. সতর্ক হতে হবে প্রতিটি ক্ষেত্রে

আপনি আপনার ক্লায়েন্ট এর সঙ্গে যোগাযোগ করুন এবং তাদের জানান যে আপনি তাদের প্রযেক্ট সম্পন্ন করার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন, যদিও ক্লায়েন্ট এ ব্যাপারে আপনাকে কোন প্রশ্ন না করে থাকেন।

২. সময়সীমার দিকে নজর দিন

নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে প্রযেক্ট শেষ করার ব্যপারে ক্লায়েন্টে এর সাথে আপনি একমত, তা নিশ্চিত করুন। কোন কারণে যদি আপনি নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে প্রযেক্ট সম্পন্ন করতে সক্ষম না হন তাহলে অবিলম্বে আপনার ক্লায়েন্ট কে অবগত করুন, যখন আপনি কাজটি সম্পন্ন করতে সক্ষম হবেন।

৩. জিজ্ঞাসা করুন

কোন বিষয়ে সন্দেহ থাকলে প্রশ্ন করুন। আপনার যদি কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে ক্লায়েন্ট কে তা জিজ্ঞাসা করতে ভয় পাবেন না। আপনি কাজ ঠিক ঠিক ভাবেই করছেন, এ বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী হওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

৪. মেইল/প্রশ রেসপন্স করুন সাথে সাথে

ক্লায়েন্ট যখন আপনাকে ম্যাসেজ পাঠায়, এক দিনের মধ্যে সাড়া দেয়ার চেষ্টা করুন। ক্লায়েন্ট এ ব্যাপারে খুব উদ্বিগ্ন থাকেন যদি ফ্রিল্যান্সার সময় মত তার ম্যাসেজের উত্তর না দেয়।

৫.ফিডব্যাক এর জন্য অনুরোধ করুন

কাজের ফিডব্যাক জানতে ক্লায়েন্ট কে প্রশ্ন করুন। ফলে ক্লায়েন্ট বুঝতে পারবেন আপনি আরো ভালো করতে অত্যন্ত আগ্রহী। হয়ত এ আগ্রহ দেখে ক্লায়েন্ট আপনাকে পরবর্তী কাজের জন্য আবার হায়ার করতে পারেন।

প্রযেক্ট এর শেষ মুহুর্তে কি করতে হবেঃ

প্রথম ইমপ্রেশন আপনাকে একটি চুক্তিতে জয়ী হতে সাহায্য করতে পারে। চূড়ান্ত ইমপ্রেশন ভালো ফিডব্যাক এবং ভবিশ্যতে পুনরায় ক্লায়েন্ট আপনাকে কাজ দিবেন কিনা তার উপর নির্ভর করে। নিশ্চিত করুন উভয় ইমপ্রেশন সমানভাবে ইতিবাচক দিকে যাচ্ছে।

১. নিশ্চিত করুন ক্লায়েন্ট আপনার উপর খুশি

যখন আপনি আপানার চূড়ান্ত কাজ জমা দিবেন, আপনি আপনার ক্লায়েন্ট কে জিজ্ঞাসা করুন কাজ কেমন হয়েছে বলে তারা মনে করছে? আপনি তাদের প্রত্যাশা কতটুকু পূরণ করত সক্ষম হয়েছেন। অত্যন্ত সচ্ছ হোন যদি কোন পরিবর্তন প্রয়োজন হয়। আপনি যদি সব সময় ফাইভ ষ্টার পাওয়ার মত কাজ করেন,  ক্লায়েন্ট আপনাকে হাই রেটেড হিসেবে সাব্যস্ত করবেন এবং সব সময় আপনার সাথেই কাজ করতে পছন্দ করবেন।

২. ক্লায়েন্ট এর সাথে চুক্তি সম্পন্ন করুন

যখন আপনি আপনার চূড়ান্ত কাজ জমা দিবেন এবং ক্লায়েন্ট গ্রহণ করবেন, নিশ্চিত করুন তিনি চুক্তি শেষ করেছেন। চুক্তি শেষে ক্লায়েন্ট সচরাচর কাজের ফিডব্যাক দিয়ে থাকেন। ইতিবাচক ফিডব্যাক আপনার স্কোর বৃদ্ধি, আপওয়ার্ক এ অন্যান্য সম্ভাব্য ক্লায়েন্ট তৈরী কারার সম্ভাবনা তৈরী করতে পারে।

ফ্রিলান্সিং নিয়ে আমাদের আরো পোস্ট দেখতে এখানে যান

The following two tabs change content below.
অনলাইনে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা কথা গুলোকেই সহজে জানবার সুবিধার জন্য একত্রিত করার চেস্টা করি। সংগৃহিত কথা গুলোর সত্ব (copyright) সম্পূর্ণভাবে সোর্স সাইটের লেখকের ।ঘাটাইল ক্যান্টনমেন্ট কলেজে মানবিক শাখায় পড়ছি।থাকি ঘাটাইলেই,টাংগাইল।পরিবার খুব সাধারন।তাই স্বভাবতই আমিও তাই।

Leave Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *